ব্লগ

One Comment:

  1. কবিতা আবৃত্তির ছোট্ট প্রচেষ্টা

    https://soundcloud.com/hisham-m-nazer/f4xrkr3di398?utm_source=soundcloud&utm_campaign=share&utm_medium=facebook

    হিশাম ম. নাজের
    প্রভাষক, ইংরেজি বিভাগ
    বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়
    রাজশাহী

    মনে পড়ে?

    মনে পড়ে
    অযাচিত সন্ধ্যাগুলোর কথা,
    কেমন করে বিকেলকে ফাঁকি দিয়ে
    ফুড়ুৎ করে ঢুকে যেত ঘরে
    দোয়েলটাকে নিদ্রা-সঙ্গী করে?
    মনে পড়ে তোর
    সকালের মিষ্টি আলো আর ছায়ার রঙে ডোরাকাটা হেঁসেলের মিষ্টি কথা?
    শুকনো পাতার তলে ধুঁকতে থাকা রুগ্ন ঘরখানি
    কেমন মায়াডোরে বেঁধে খুব মায়া ভরে ডাকে,
    তাই না বল্?
    ধুপি পিঠার ধোঁয়া আর কুয়াশার ঘোর
    আমি আজও কাটাতে পারিনি রে!
    আজও আমার মনে পড়ে….. মা বলত:
    “আজ এম্নি খা বাবা,
    কাল গুড় দিয়ে বানিয়ে দেব।”
    মনে পড়ে
    স্বপ্নের স্বাদ কত মিষ্টি ছিল?
    মায়াধোঁয়ার ওপারে মলিন কায়াখানিতে…কতটা কষ্ট ছিল?

    মনে পড়ে
    দাদি মারা গেল সেই কেমন কঠোর শীতে?
    প্রতিদিন ট্রেনের শব্দে বিচলিত হয়ে
    কেমন পাগলপ্রায় হয়ে ছুটতো আর বলতো:
    “আমার ছেলে! আমার ছেলে ফিরেছে!
    আয় রে আয় তোদের বাবা এস্ছে, আয়!”
    একদিন মায়ের আঁচল টেনে
    কিছু না বুঝেই বলেছিলাম:
    “মা, বাবা কে?”
    দুয়ারে হঠাৎ মানুষের জটলা-কোলাহলে
    মায়ের উত্তর শুনতে পাই নি সেদিন,
    খালি দেখতে পেয়েছিলাম
    মানুষের ভিড়, আর ভিড়ের মাঝে
    দাদির মলিন সাদা শাড়ির একটুখানি।
    মনে পড়ে,
    সেই শাড়িতে মুড়েই কত সকাল স্মৃতির ভাপে ভাপে
    পিঠার গল্পে রূপ নিয়েছিল?
    মনে পড়ে,
    কিভাবে ট্রেনটাও উধাও হয়ে গিয়েছিল
    কোন এক প্রভাত-মন্ত্রের ধুপধোঁয়ায়?

    মনে পড়ে কি রে তোর
    সেই দিনগুলির কথা?
    সেই হেঁসেলের কথা?
    দোয়েলটাকে মনে পড়ে তোর?
    খাবি ধুপি পিঠা?
    গুড় দিয়েছি, নারকেলও আছে
    আর গুড় লাগলে আরোও নে
    আরোও গুড় আছে,
    গুড় যত নিতে চাস্ নে না কেন!
    গুড় আছে!
    মা যেমন করতে চেয়েছিল সারাজীবন
    তেমন হবে না হয়তো…
    কাঁদিস্নে ভাইটি আমার,
    নে আরোও গুড় নে…

Leave a Reply

Your email address will not be published.